,
সংবাদ শিরোনাম :

প্রকৌশলী মনোয়ার খান আজব এক রহস্য !

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিলেট বেতারের অনিয়ম, দূর্ণীতির মূল হোতা মনোয়ার খান একজন মানসিক রোগী ! তার অসংলগ্ন কথা বার্তা, আচার আচরন, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সাথে সৌজন্যহীনতা সে রোগেরই বহিঃপ্রকাশ, এমনটাই মনে করছেন বেতার সংশ্লিষ্টরা ।

 

অনেকটা এক ঘড়ে হয়েই আছেন প্রকৌশলী মনোয়ার । নিজ দপ্তর প্রকৌশল বিভাগের দায়িত্বে নিয়োজিতরাও দুরে থাকার চেষ্টা করছেন । নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারই দপ্তরের জনৈক কর্তা বললেন “একজন বিকারগ্রস্থ লোক মনোয়ার খান” । ভালো মন্দ সব কথাতেই রিঅ্যাকশন দেখান । বার্তা বিভাগের একজনের মতে “পাগল পাগলামী করবে” এটাই স্বাভাবিক । চতুর্থ শ্রেনীর কর্মচারীরাও একান্ত বাধ্য না হলে তার ধারেকাছে ঘেসতে ভয় পায় । অনেকের মতে তিনি কোন স্বাভাবিক মানুষ নন, রীতিমত অস্বাভাবিক ।

 

জানা যায়, ২০১২ সালে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিউট মেন্টাল হেলথ ও হাসপাতালের তৎকালীন সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ কে এম ফিরোজ’র তত্ত্বাবধানে তিনি মানসিক রোগ “সিজোফ্রেনিয়া”র চিকিৎসা নিয়েছেন । ডাঃ ফিরোজের ধানমন্ডিস্থ মনোজগৎ সেন্টারে প্রায় ২ বছর মনোয়ার খান চিকিৎসাধীন ছিলেন এবং থেরাপি নিয়েছেন । এখনও নিয়মিত চেকআপ করে থাকেন । সুস্থ থাকার জন্য নিয়মিত ঔষধ সেবন করতে হয় ।

 

মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞদের মতে এ ধরনের রোগী খুব স্বাভাবিক আচরন করতে পারেনা । সহজেই উত্তেজিত হয়ে যায়, কাউকে বিশ্বাস করতে পারেনা । পাশাপাশি নিজেকে বিশেষ ক্ষমতাবান মনে করে এবং অন্যকে হেয় করে । সিজোফ্রেনিয়া এমন একটি রোগ যা নিয়ন্ত্রনে রাখা যায়, তবে পুরোপুরি নিরাময় যোগ্য নয় । নিয়মিত চেকআপ ও ঔষধ সেবন করলে ভালো থাকা যায় ।

 

বাংলাদেশ বেতার একটি স্পর্শকাতর গণমাধ্যম । প্রকৌশল বিভাগের গুরুত্ব অনেক বেশি । সামান্য অসাবধানতা অনেক বড় বিপর্যয় নিয়ে আসতে পারে । এই স্পর্শকাতর জায়গায় একজন মানসিক রোগী কি করে আঞ্চলিক প্রকৌশলীর মতো গুরু দায়িত্ব পালন করছেন-জনমনে সে প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছে ।

 

এদিকে সিলেট বন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এস এম সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন ৬৫ টি গাছ কাটার কথা থাকলেও আঞ্চলিক প্রকৌশলী মনোয়ার খান ১৪৩ টি গাছ কর্তন করেছেন । এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে ।

 

সিলেট সদরের সহকারী বন সংরক্ষক জিএম আবু বকর সিদ্দিককে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন হবিগঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক আবদুল্লাহ আল মামুন ও সিলেট রেঞ্জের ফরেস্ট রেঞ্জার দেলোয়ার হোসেন । তারা আজ ৩১ জুলাই থেকে তদন্ত কার্য শুরু করেছেন । আগামীকালও তারা তদন্ত করবেন । তদন্ত করার পর অভিযোগ প্রমানীত হলে-যার নির্দেশে সব গাছ কাটা হয়েছে বা টেন্ডার আহবান করা হয়েছে, অবশ্যই তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হবে । তিনি আশা করছেন এক সপ্তাহের মধ্যে এ বিষয়ে একটি সিন্ধান্তে উপনীত হওয়া সম্ভব হবে ।

Share Button

৩ responses to “প্রকৌশলী মনোয়ার খান আজব এক রহস্য !”

  1. Greetings! This is my 1st comment here so I just wanted to give a quick shout out and say I
    genuinely enjoy reading your posts. Can you suggest any other blogs/websites/forums that deal
    with the same subjects? Thanks a ton!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ আপডেট

সম্পাদক ও প্রকাশক : এম. এম. শরীফুল আলম তুহিন
ইমেইল : expresstimes24@gmail.com
মোবাইল: ০১৭১২ ৭৪৭ ১৩৯ # ০১৯১৯ ৭৪৭ ১৩৯